মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

বিএসটিআই এর কার্যক্রম

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) দেশে উৎপাদিত ও বিদেশ হতে আমদানিকৃত পণ্যের মান প্রণয়ন, মান নিয়ন্ত্রণ, ওজন ও পরিমাপে কারচুপি রোধসহ ওজন পরিমাপের সঠিকতা বিধানকারী একমাত্র জাতীয় প্রতিষ্ঠান। বিএসটিআই অধ্যাদেশ, ১৯৮৫ এবং বিএসটিআই (এমেন্ডমেন্ট) এ্যাক্ট, ২০০৩ এর ২০ ধারা অনুযায়ী পণ্যের উৎপাদনকারী/আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানকে সার্টিফিকেশন মার্কস (সিএম) লাইসেন্সের জন্য বিএসটিআই এর নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়। উক্ত আবেদনের প্রেক্ষিতে কারখানা/ ওয়্যারহাউজ পরিদর্শন পূর্বক যথাযথ বিবেচিত হলে যৌথ স্বাক্ষরের মাধ্যমে নমুনা সীল করা হয়। সংগৃহীত/সীলকৃত নমুনা সংশি¬ষ্ট বাংলাদেশ মান (বিডিএস) অনুযায়ী পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে মান সম্মত পাওয়া গেলে লাইসেন্স প্রদান/ নবায়ন করা হয়। আর পণ্য পরীক্ষায় নি¤œমানের পাওয়া গেলে লাইসেন্স প্রদান/নবায়ন এর আবেদন প্রত্যাখ্যান করে নি¤œমানের পণ্য বিক্রয় বিতরণ না করার জন্য সংশি¬ষ্ট উৎপাদনকারী/ আমদানিকারককে নির্দেশ প্রদান করা হয়।


ক্রেতা-ভোক্তার স্বার্থ তথা পণ্যের জনগুরুত্ব বিবেচনা করে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বিভিন্ন সময়ে এসআরও জারীর মাধ্যমে এযাবৎ ১৫৬ টি পণ্যকে বিএসটিআই এর বাধ্যতামুলক সার্টিফিকেশন মার্কস (সিএম) লাইসেন্সের আন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে । তন্মধ্যে ৫৯ টি খাদ্য পণ্য রয়েছে। পণ্যের আমদানি গুরুত্ব বিবেচনা করে সরকার কর্তৃক জারীকৃত আমদানি নীতি আদেশ ২০১২-২০১৫ এর অনুচ্ছেদ ২৬ এর উপ-অনুচ্ছেদ ২৮ এ ৪৩ টি পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে সংশি¬ষ্ট আমদানিকারককে বিএসটিআই থেকে কনসাইনমেন্ট ভিত্তিক উক্ত পণ্য পরীক্ষা করে পরীক্ষণ রিপোর্ট সংক্রান্ত প্রত্যয়ন পত্র শুল্ক কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল সাপেক্ষে বন্দর হতে পণ্য ছাড় করণের বিধান করা হয়েছে। সে মোতাবেক বিএসটিআই থেকে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে। বাধ্যতামূলক সিএম লাইসেন্সের আওতাভুক্ত পণ্যসমূহ পরীক্ষা নিরীক্ষা পূর্বক গুণগত মান নিশ্চিত হয়ে লাইসেন্স গ্রহণ/নবায়ন করা বাধ্যতামুলক। গুণগত মান নিশ্চিত না করে লাইসেন্স গ্রহণ ব্যতীত বাধ্যতামূলক ১৫৬ টি পণ্য বিক্রয় বিতরণ করা আইনত দন্ডনীয় ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এছাড়া বাধ্যতামূলক পণ্যের লাইসেন্স গ্রহণসহ পণ্যের প্যাকেট/মোড়কে মান চিহ্ন (ঝঃধহফধৎফ গধৎশ) ব্যবহার করাও বাধ্যতামূলক। পণ্যের মোড়কে/প্যাকেটে প্রতিষ্ঠানের নাম-ঠিকানা, উপাদান, উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ, ব্যাচ নম্বর/ কোড নম্বর, খুচরা বিক্রয় মূল্য ইত্যাদি না লেখা বেআইনী।

 

বিএসটিআই সর্বদা ভেজাল ও নকল খাদ্য ও পণ্য উৎপাদন ও বিপণন প্রতিরোধের বিষয়ে অধিক গুরুত্ব প্রদান করে থাকে। বিএসটিআই তার প্রধান কার্যালয় ঢাকাসহ ৬ টি বিভাগীয় আঞ্চলিক অফিসের মাধ্যমে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে নি¤œমানের, সিএম লাইসেন্স বিহীন পণ্যের নকল ও ভেজাল পণ্য উৎপাদক ও বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট/সার্ভিল্যান্স কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

 

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter